কর্ণফুলী ড্রাইডকের জেটিতে ভিড়েছে স্ক্র্যাপের জাহাজ

Dhaka Post Desk

বিশেষ প্রতিনিধি

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২

বার দেখা হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি
কর্ণফুলী নদীর দক্ষিনপাড়ে কর্ণফুলী ড্রাইডকের দ্বিতীয় একটি জেটিতে ভিড়েছে পণ্যবাহি জাহাজ। গত মার্চের শুরু থেকে সেখানে নির্মিত প্রথম জেটিতে জাহাজ ভিড়ানো শুরু হয়েছিল; আজ বুধবার থেকে দ্বিতীয় জেটিতে জাহাজ ভিড়ানো শুরু হলো।
বেসরকারী উদ্যোগে নির্মিত কর্ণফুলী ড্রাইডক জেটি মুলত জাহাজ মেরামত-নির্মানের জন্য তৈরী করা হয়েছে চট্টগ্রাম বন্দরের অনুমতি নিয়েই। অনুমোদনের সময় শর্ত ছিল নিজেদের ব্যবহার শেষে জেটি খালি থাকলে বন্দর কর্তৃপক্ষ চাইলে সেখানে পণ্যবাহি বাণিজ্যিক জাহাজ ভিড়াতে পারবে। এখন সেই শর্তেই জাহাজ ভিড়ানো শুরু হলো।
জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম. শাহজাহান বলেন, ড্রাইডক জেটি অনুমোদনের শর্তই ছিল বন্দরের প্রয়োজনে জাহাজ ভিড়ানো যাবে। আগে আমরা চট্টগ্রাম ড্রাইডক জেটি ব্যবহার করতাম; এখন কর্ণফুলী ড্রাইডক জেটি ব্যবহার করছি।
তিনি বলছেন, কর্ণফুলী ড্রাইডকে দুটি জেটি পায়ায় বাল্ক বিশেষ করে স্ক্র্যাপ পণ্যবাহি জাহাজ দ্রুত জেটিতে ভিড়িয়ে পণ্য নামানো আরো সহজ হবে। এতে বন্দরের রাজস্ব আয়ও বাড়বে।
জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃূপক্ষ এমন এক সময় ড্রাইডক বা জাহাজ মেরামতের জেটিতে পণ্যবাহি জাহাজ ভিড়ানো শুরু করলো; যখন বন্দরের প্রধান ৬টি জেটির ইয়ার্ড ভেঙ্গে যাওয়া অংশের মেরামত কাজ চলছে। আর সেই মুল জেটিতে স্ক্র্যাপবাহি জাহাজ ভিড়ানো সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। এই অবস্থায় স্ক্র্যাপবাহি জাহাজগুলো দ্রুত পণ্য নামাতে কর্ণফুলী ড্রাইডক জেটিতে ভিড়ানো হচ্ছে।
জানা গেছে, কর্ণফুলী ড্রাইডকের দ্বিতীয় জেটির দৈর্ঘ্য হচ্ছে ১০৫ মিটার। আজ বুধবার সেই জেটিতে জাহাজ ভিড়ানো হয়েছে ১৭৯ মিটার দৈর্ঘ্যের ‘গিউলিয়া-১’ নামের জাহাজ। অর্থ্যাৎ জেটির চেয়ে জাহাজের দৈর্ঘ্য বড়।
জাহাজটির শিপিং এজেন্ট এভারেট শিপিংয়ের পরিচালক আসিফ ইফতেখার হোসেন বলেন, জেটির চেয়ে জাহাজের দৈর্ঘ্য বড় হলেও পণ্য নামাতে কোন সমস্যা নেই। বাড়তি অংশ জেটির বাইরে চলে যাবে। আর জাহাজ থেকে পণ্য নামবে তো ক্রেন দিয়ে।
জানা গেছে, ‘গিউলিয়া-১’ নামের জাহাজটি ৩৩ হাজার টন স্ক্র্যাপ নিয়ে গত ১৭ জুলাই চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছে। সেখানে ৯ হাজার টন স্ক্র্যাপ ছোট জাহাজে নামানো হয়েছে। বাকি পণ্য নিয়ে জাহাজটি আজ বুধবার কর্ণফুলী ড্রাইডক জেটিতে ভিড়েছে। জাহাজটির পণ্য নামানোর কাজটি করছে বার্থ অপারেটর কসমস এন্টারপ্রাইজ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।