সেই সাত নাবিকের কভিড পজিটিভ; জাহাজ থেকে পণ্য নামানো বন্ধ; কোয়ারেন্টিনের নির্দেশ

বিশেষ প্রতিনিধি
অবশেষে চীন থেকে আসা সেই জাহাজের সাত নাবিকের কভিড ধরা পড়েছে। সেই নাবিকদের জাহাজ থেকে নামিয়ে বেসরকারী উদ্যোগে ১৪ দিনের কােয়ারেন্টিন সম্পন্ন করতে নির্দেশ দিয়েছে বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।
জাহাজে মোট ২১ নাবিকের নমুনা সংগ্রহ করে কভিড পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। গত রবিবার আাসা রিপাের্টে সাতজনেরই কভিড পজিটিভ এসেছে; বাকিদের কভিড নেই।
এদিকে জাহাজে থাকা নাবিকদের মধ্যে সাতজনের কভিড উপসর্গ দেখা দিলে গত শনিবার থেকেই জাহাজ থেকে পণ্য নামানো বন্ধ করা হয়। এরপর থেকেই জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরের আলফা অ্যাংকরেজে অবস্থান করছে।
জানতে চাইলে সহকারী বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. নুরুল আবছার বলেন, ‘এমভি সেরেন জুনিপার’ জাহাজের ক্যাপ্টেন স্থানীয় শিপিং এজেন্টের মাধ্যমে নাবিকদের করোনার উপসর্গ থাকার বিষয়টি আমাদের অবহিত করেন। এরপরই বহির্নোঙরে অবস্থানরত জাহাজে আমাদের স্বাস্থ্যকর্মী গিয়ে জ্বর থাকায় প্রমান পায়। এরপর জাহাজে থাকা মোট ২১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রবিবার রাতে আসা রিপোর্টে সাতজনেরই কভিড পজিটিভ হয়েছে। বাকি নাবিকরা নেগেটিভ। জাহাজটিতে ১৬ জন ফিলিপাইনের নাগরিক, তিনজন ইউক্রেন, একজন রাশিয়ান, একজন রোমানিয়ান নাবিক রয়েছেন।
তিনি বলেন, জাহাজ থেকে পণ্য নামানো বন্ধ রাখা হয়েছে। ১৪ দিনের কােয়ারেন্টিন রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। পজিটিভ হয়া সাতজন নাবিককে জাহাজ থেকে নামিয়ে হাসপাতাল বা বেসরকারী কোন প্রতিষ্ঠানে কােয়ারেন্টিন করার জন্য শিপিং এজেন্টদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে জরুরি প্রয়োজন হলে হাসপাতালে চিকৎসার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।
উল্লেখ্য, চীনের ন্যানটং বন্দর থেকে সার বোঝাই করে আসা জাহাজ ‘এমভি সেরেন জুনিপার’ গত ১২ আগস্ট বন্দর জলসীমায় পৌঁছায়। জাহাজটি ৪৬ হাজার ৩০০ টন ডিএপি সার নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে এসেছিল। এরমধ্যে ২৪ হাজার টন সার চট্টগ্রামে নামানো হয়েছে; বাকি ২২ হাজার টন সার মোংলায় নামানো হবে বলে জানিয়েছেন জাহাজের শিপিং এজেন্ট মাল্টিপোর্ট শিপিং লাইনসের ম্যানেজার মাহমুদুল হাসান। তিনি বলেন, জাহাজ থেকে কভিড আক্রান্ত নাবিকদের নামিয়ে বাইরে কোয়ারেন্টিন করার এখন পর্যন্ত কোন মৌখিক-লিখিত নির্দেশনা আমরা পাইনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *