মাত্র ৬ ঘন্টায় জাহাজ বার্থিং চট্টগ্রাম বন্দরে

নতুন রেকর্ড

0
1501

বিশেষ প্রতিনিধি
বহির্নোঙরে পৌঁছার মাত্র ৬ ঘন্টা অপেক্ষার পর একটি বিদেশি কন্টেইনার জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে ভিড়ার সুযোগ পেয়েছে। পণ্যবাহি কন্টেইনার জাহাজটির নাম‌ ‌‌’মানাতি’; জাহাজটি শ্রীলংকার কলম্বো বন্দর থেকে বহির্নোঙরে পৌঁছেছে গতকাল সোমবার সকাল ৯টায়; আর সেদিন ৩টায় জাহাজটি জেটিতে ভিড়তে পেরেছে। স্বাভাবিক সময়ে দুই থেকে তিনদিন বহির্নোঙরে অপেক্ষার পর একটি কন্টেইনার জাহাজ বন্দর জেটিতে ভিড়ার সুযোগ পায়। কিন্তু মাত্র ৬ ঘন্টার ব্যবধানে জেটিতে ভিড়তে পারা চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য নতুন এক রেকর্ড।
মুলত বন্দরে অপেক্ষমান জাহাজের সংখ্যা চাহিদা অনুযায়ী কম থাকা এবং সেই অনুযায়ী জেটি ফাঁকা থাকায় জাহাজটি সরাসরি জেটিতে ভিড়ার সুযোগ পেলাে। অবশ্য সরাসরি ভিড়তে পারার আরেকটি কারণ হচ্ছে জোয়ারের আগেই জাহাজটি বহির্নোঙরে পৌঁছানো।
কিভাবে সম্ভব হলো জানতে চাইলে জাহাজটির শিপিং এজেন্ট ক্রাউন নেভিগেশন লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর সাহেদ সারোয়ার শিপিং এক্সপ্রেসকে বলেন, জাহাজটি কলম্বো থেকে বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছেছে সকাল ৯টায়। বন্দরের পাইলট বোর্ডিং বা জাহাজে উঠেছে ১১টায় আর জাহাজটি বন্দর জেটিতে ভিড়েছে বিকাল ৩টায় অর্থ্যাৎ বহির্নোঙরে পৌঁছার ৬ ঘন্টা পর জাহাজ জেটিতে ভিড়েছে। সাধারন সময়ে যেটা তিনদিন লাগে। মুলত জোয়ার আসার আগে বহির্নোঙরে পৌঁছানো, জেটি খালি থাকা এবং পাইলট মুভমেন্ট সবকিছু ব্যাটে-বলে হওয়ার কারণেই এটি সম্ভব হয়েছে।
এতে আপনাদের কী লাভ হলো জানতে চাইলে শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের এই পরিচালক বলেন, দেখুন কলম্বো বন্দর থেকে চট্টগ্রাম বন্দর হয়ে আবার কলম্বো বন্দর (রাউন্ড ট্রিপ) যেতে স্বাভাবিক সময়ে  ২০দিন লাগ; এখন সেটি লাগছে ১৫দিন। বাড়তি ৬দিন আমরা সাশ্রয় করতে পারলাম শুধুমাত্র বন্দরের কন্টেইনারজট ও জাহাজ জট না থাকায়।
জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ ভিড়তে জোয়ার-ভাটার ওপর পুরোপুরি নির্ভরশীল। জোয়ারের সাথে জাহাজ জেটিতে প্রবেশ করে এবং পণ্য নিয়ে বা নামিয়ে জেটি ছেড়ে যায়।কারণ ভাটার সময় কর্ণফুলী নদীতে পানির উচ্চতা জাহাজ প্রবেশের মতো উপযােগি থাকে না। ফলে জাহাজ যখনই আসুক না কেন বা জেটিতে পণ্য নামানো যত আগেই শেষ হোক না কেন জোয়ারের অপেক্ষায় থাকতে হয়। শুধু জোয়ার নয় বহির্নোঙরে আসার পর সব বিদেশি কন্টেইনার জাহাজকেই দুই থেকে তিনদিন অপেক্ষায় থাকতে হয়। এরপর সে জেটিতে ভিড়তে পারে।
জানতে চাইলে বিদেশি শিপিং কম্পানি জিবিক্স লজিস্টিকসের অ্যাসিসটেন্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মুনতাসির রুবাইয়াত শিপিং এক্সপ্রেসকে বলেন, এটি আমাদের জন্য সুখবর। সিঙ্গাপুর বন্দরে যেটা সবসময় হয় জাহাজ আসার পরপরই জেটিতে ভিড়ে গেলো। এখন সেটা চট্টগ্রাম বন্দরে হলো। কারণ ২/৩ দিন বহির্নোঙরে অপেক্ষায় থাকতে হবে মাথায় নিয়েই আমরা জাহাজ ভাড়া ও জাহাজের শিডিউল চুড়ান্ত করি। এক্ষেত্রে জোয়ারের সাথে টাইমিং মিলে যায়ায় সুযোগটি তৈরী হলো। শুধু জেটি খালি থাকলেই নয়’ স্বাভাবিক সময়ে যদি আমরা এই সুযোগটি নিতে পারি তাহলে বাংলাদেশ অর্থনীতিতে বিশ্ব প্রতিযোগিতায় অনেকদুর এগিয়ে যাবে। এজন্য টার্মিনাল, জেটি ও বন্দর ব্যবস্থাপনার উন্নতি করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here