বন্দরে জাহাজজট আমেরিকা থেকে চীনে স্থানান্তর

Dhaka Post Desk

বিশেষ প্রতিনিধি

25 September, 2022

Views

করোনা মহামারির কারণে বিশ্বের সমুদ্রবন্দরগুলোতে তৈরী হওয়া বড় ধরনের জাহাজজট আগের তুলনায় কমে এলেও এখনো স্বাভাবিক হয়ে আসেনি। বন্দরগুলোর জট এক অঞ্চলের বন্দর থেকে অন্য অঞ্চলে স্থানান্তর হচ্ছে। বন্দর জট আমেরিকা থেকে এশিয়াতে স্থানান্তর হয়েছে। বিশেষ করে চীনে এই জট বাড়ছেই। যুক্তরাষ্ট্রের সবচে ব্যস্ততম বন্দর ক্যালিফোর্নিয়া এবং লং বিচে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে একটি জাহাজের গড় অবস্থানকাল ছিল ১৪ দিন; ২০২২ সালের জানুয়ারিতে সেটি কমেছে প্রায় অর্ধেক অর্থ্যাৎ সাড়ে সাতদিনে নেমেছে। আর চীনের বন্দরে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে জাহাজের গড় অবস্থান ছিল ১৩ দিন; ২০২২ সালের জানুয়ারিতে সেটি একলাফে বেড়ে ১৬ দশমিক ৭ দিনে নেমেছে।

হংকংয়ের বন্দরে সবচে উদ্বেগজনক অবস্থায় আছে জাহাজজট। সেই বন্দরে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে একটি জাহাজের গড় অবস্থানকাল ছিল সাড়ে ১৭ দিন; ২০২২ সালের জানুয়ারিতে সেটি একলাফে বেড়ে সাড়ে ২২দিনে নেমেছে; যা রেকর্ড। চীন-হংকংয়ের বন্দরে জাহাজজট থাকলে বিশ্বের মতো বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরাও উদ্বিগ্ন থাকেন। এর মুল কারণ এই দেশ থেকেই সবচে বেশি পণ্য আমদানি হয় বাংলাদেশে।

মুলত জাহাজজট কম-বেশির মুল কারণ হচ্ছে দেশে দেশে করোনা পরিস্থিতির হ্রাস-বৃদ্ধি। যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ড্রিউরির গবেষণা বিভাগের পরিচালক মার্টিন ডিক্সন বলেন, রেকর্ডসংখ্যক সংক্রমণের কারণে ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন বন্দরে কর্মীর সংকট সৃষ্টি হয়েছে। অনেক দেশ এখনো শূন্য কোভিড নীতি অনুসরণ করছে। এতে সংকট আরও ঘনীভূত হবে।

বৈশ্বিক সরবরাহব্যবস্থায় চীন অনেক বড় ভূমিকা পালন করে। কিন্তু দেশটির বিভিন্ন শহরে কোভিড সংক্রমণ বাড়তে শুরু করায় বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। যেমন জিয়ান শহরে গত ২৩ ডিসেম্বর থেকে বিধিনিষেধ চলছে। এই শহরে অনেক শিল্পপ্রতিষ্ঠান আছে। বিধিনিষেধের কারণে ইতিমধ্যে স্যামসাং ও মাইক্রনের মতো কোম্পানি উৎপাদনব্যবস্থায় পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়েছে।

নভেম্বর মাসে সরবরাহ ব্যবস্থায় চাপ কমতে শুরু করলে এশিয়া থেকে উত্তর আমেরিকার পশ্চিম উপকূলে ৪০ ফুট আকৃতির কনটেইনার পরিবহনের ভাড়া ২৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছিল। কিন্তু চীনে আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে চান্দ্র নববর্ষ উদ্‌যাপিত হবে। এতে চাপ বেড়ে যাওয়ায় চীনের সাংহাই বন্দর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে কনটেইনার পরিবহনের ভাড়া ৩ শতাংশ বেড়ে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.