ডিপোতে রপ্তানি পণ্য পরিবহনে ২৫ শতাংশ বাড়তি মাশুল

Dhaka Post Desk

বিশেষ প্রতিনিধি

28 November, 2022

Views

এবার বেসরকারী কন্টেইনার ডিপােতে রপ্তানি পণ্য পরিবহন মাশুল বাড়ানো হলো। প্রতি কনটেইনার রপ্তানি পণ্য ব্যবস্থাপনার জন্য এখন ২৫ শতাংশ বাড়তি মাশুল দিতে হবে। তাতে বছরে ন্যূনতম ৭৬ কোটি টাকা বাড়তি খরচ হবে রপ্তানি খাতে। গতকাল রবিবার ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার অ্যাসোসিয়েশনের (বাফা) নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মাশুল বাড়ানোর এই ঘোষণা দেন কনটেইনার ডিপো অ্যাসোসিয়েশন বিকডা নেতারা। ঢাকায় বাফার কার্যালয়ে গতকাল দুপুরে এই বৈঠক হয়।
এর আগে ডিপোতে আমদানি পণ্য পরিবহন খরচ বাড়িয়েছিল বিকডা। গতকাল রপ্তানি পণ্য ব্যবস্থাপনার খরচও বাড়ানো হলো।

চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে রপ্তানি হওয়া কনটেইনার পণ্যের ৯০ শতাংশ বেসরকারি ডিপোর মাধ্যমে ব্যবস্থাপনা হয়। এ হিসাবে বাড়তি মাশুল দিতে হবে ৯০ শতাংশ রপ্তানি পণ্যে। মূলত বিদেশি ক্রেতারাই এই মাশুল দেন। আবার অনেক ক্ষেত্রে চুক্তি অনুযায়ী, রপ্তানিকারকেরাও এই মাশুল পরিশোধ করেন।
মাশুল বাড়ানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তৈরি viagra en ligne site fiable পোশাক খাতের রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএর প্রথম সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন, মাশুল পরিশোধের দায়িত্ব বিদেশি ক্রেতা বা রপ্তানিকারক যার কাঁধেই পড়ুক, দিন শেষে রপ্তানি খাতের ওপর প্রভাব পড়বে। জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর কারণে মাশুল বাড়বে, এটা ঠিক। তবে তা ডিপোর নীতিমালা অনুযায়ী কমিটি নির্ধারণ করার কথা। নিয়ম না মেনে অযৌক্তিকভাবে এই মাশুল বাড়ানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রামে ২০টি অনুমোদিত বেসরকারি কনটেইনার ডিপো রয়েছে। সারা দেশের কারখানাগুলো থেকে রপ্তানি পণ্য এসব ডিপোতে এনে কনটেইনারে বোঝাই করে বন্দর দিয়ে রপ্তানি হয়। আবার বন্দর দিয়ে আমদানি হওয়া ৩৮ ধরনের কনটেইনার-ভর্তি পণ্য এসব ডিপোতে এনে খালাস করা বাধ্যতামূলক। এ ছাড়া ডিপোগুলো খালি কনটেইনারও সংরক্ষণ করে।

৬ আগস্ট শুক্রবার সরকার চার ধরনের জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি করে। এর মধ্যে ডিজেলের দাম লিটারপ্রতি ৩৪ টাকা বাড়ানো হয়। বেসরকারি ডিপোগুলোতে কনটেইনার ওঠানো–নামানো ও পরিবহনের কাজে ডিজেলচালিত যন্ত্রপাতির ব্যবহার হয়। তাই জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর কারণে তাদের মাশুলও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

গতকালের বৈঠকে কনটেইনার ডিপো অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নুরুল কাইয়ূম খান ৪২ দশশিক ৫০ শতাংশ মাশুল বাড়ানোর প্রস্তাব করেন। বাফার সভাপতি কবির আহমেদ ১০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানো যৌক্তিক বলে জানান। দুই পক্ষের আলোচনা শেষে ২৫ শতাংশ মাশুল বাড়ানোর বিষয়ে সমঝোতা হয়।

বৈঠকে কনটেইনার ডিপো অ্যাসোসিয়েশনের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি এস এ জে রিজভী ও সভাপতি খলিলুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। বাফার পক্ষে জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আমিরুল ইসলাম চৌধুরী ও সহসভাপতি খায়রুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমানে রপ্তানি পণ্যবাহী ২০ ফুট লম্বা কনটেইনারের ‘স্টাফিং চার্জ’ ৫ হাজার ৯২ টাকা। এই মাশুল কনটেইনারপ্রতি ১ হাজার ২৭৩ টাকা বেড়ে দাঁড়াবে ৬ হাজার ৩৬৫ টাকা। কনটেইনার ৪০ ফুট লম্বা হলে মাশুল ১ হাজার ৬৯৭ টাকা বেড়ে দাঁড়াবে ৮ হাজার ৪৮৭ টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.