জট কমে আসায় কলম্বো রুটে অগ্রাধিকার বার্থিং সুবিধা বন্ধ

বিশেষ প্রতিনিধি
চট্টগ্রাম-কলম্বো রুটে চলাচলকারী কন্টেইনার জাহাজকে দেয়া অগ্রাধিকার বার্থিং সুবিধা বন্ধ করা হয়েছে। এর ফলে এই রুটে আমদানি-রপ্তানি পণ্যভর্তি জাহাজ অন্যান্য রুটের জাহাজের মতোই স্বাভাবিক নিয়মে বন্দর জেটিতে ভিড়বে। তবে চট্টগ্রাম-কলম্বো রুটে অনুমোদন পাওয়া আটটি নতুন জাহাজ নিয়মিতই চলাচল করবে।
বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, কলম্বো রুটে আটকে পড়া রপ্তানি পণ্যভর্তি কন্টেইনারজট ইতােমধ্যে স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। এরফলে বিশেষ সেই সুবিধা স্থগিত করা হয়েছে।
জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর পরিবহন বিভাগের এক কর্মকর্তা বলছেন, কলম্বোগামি জাহাজে আমরা এখনো অগ্রাধিকার বার্থিং সুবিধা বাতিল করিনি। কলম্বোগামি রপ্তানি পণ্যভর্তি কন্টেইনারের জট না থাকায় তারা নিজেরাই আগ্রহী হচ্ছেন না। অগ্রাধিকার সুবিধা দিতে চাইলেও তারা নিচ্ছে না। ফলে অন্য জাহাজের মতোই তারা বার্থিং নিচ্ছে।
চট্টগ্রাম-কলম্বো রুটে রপ্তানি পণ্যের জট কমে যাওয়ায় অগ্রাধিকার বার্থিং সুবিধা স্থগিত করার আবেদন করেছে বাংলাদেশ শিপিং এজেন্ট এসােসিয়েশন। ২৭ জুলাই চট্টগ্রাম বন্দরের কাছে পাঠানো এক আবেদনে সংগঠনের সভাপতি সৈয়দ মোহাম্মদ আরিফ বলেন, ‌কলম্বো রুটে অগ্রাধিকার বার্থিং সুবিধা বহাল থাকায় চট্টগ্রাম-সিঙ্গাপুর; চট্টগ্রাম-মালয়েশিয়া রুটে চলাচলকারী  কন্টেইনার জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে ভিড়তে এখন ৫দিন সময় বহির্নোঙরে অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে।  স্বাভাবিক সময়ে ছিল তিন দিন। যেহেতু কন্টেইনার জট কমেছে তাই সেই সুবিধা বাতিল করে আগের মতো সবার সমান সুযোগ দেয়া উচিত।
তিনি বলেন, কলম্বো থেকে ২৫-৩০ শতাংশ আমদানি পণ্যভর্তি কন্টেইনার পরিবহন হয় চট্টগ্রামে। অগ্রাধিকার সুবিধা থাকায় সিঙ্গাপুর এবং মালয়েশিয়াসহ অন্য বন্দর হয়ে আসা পণ্যগুলো বাড়তি সময়ক্ষেপন হচ্ছে।
বেসরকারী কন্টেইনার ডিপোর হিসাবে, ১৯টি বেসরকারী কন্টেইনার ডিপোতে ৬ হাজার এককক কন্টেইনার থাকলেই সেটিকে স্বাভাবিক হিসেবে ধরা হয়। ৫ আগস্ট সেখানে রপ্তানি পণ্যের কন্টেইনার ছিল ৫ হাজার ৫৭৩ একক। অথচ ১ আগস্ট ছিল ৯ হাজার ৮শ একক; ৩১ জুলাই ছিল ১১ হাজার একক। ২৫ জুলাই থেকে যখন লকডাউন শুরু হয় তখন রপ্তানি পণ্যের কন্টেইনার ছিল প্রায় ১৩ হাজার একক অর্থ্যাৎ ৫ আগস্টের তুলনায় প্রায় দ্বিগুনের বেশি। কন্টেইনার ডিপোতে রপ্তানি পণ্যভর্তি কন্টেইনার কমে আসায় কলম্বো রুটের জাহাজগুলো অগ্রাধিকার সুবিধা নিতে চাইছে না। কারণ সেই পরিমান পণ্য বুকিং নেই জাহাজগুলোর কাছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *