চট্টগ্রাম  বন্দর দিয়ে মে মাসে আমদানিতে রেকর্ড, রপ্তানিও বেড়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি
চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে মে মাসে রেকর্ড পরিমান পণ্য আমদানি হয়েছে। এই আমদানির পরিমান ২০২১ সালের মধ্যে সর্বোচ্চ। শুধু তাই নয়, ২০২০, ২০১৯ সালের তুলনায় এই আমদানির পরিমান বেশি। সদ্য সমাপ্ত মে মাসে ১ লাখ ২২ হাজার একক কন্টেইনার পণ্য এসেছে দেশের প্রধান এই সমুদ্রবন্দর দিয়ে।
২০২১ সালের মে মাসেও রপ্তানি বেড়ে হয়েছে ৫৬ হাজার একক কন্টেইনার। চলতি বছরের এপ্রিল মাসের তুলনায় বেশি রপ্তানি হলেও জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি মার্চ মাসের তুলনায় কম।
জানতে চাইলে শিপিং এজেন্ট এসোসিয়েশনের পরিচালক মুনতাসির রুবাইয়াত বলছেন, আগে রমজান ছিল এখন বাজেট ঘিরেই আমদানি বেড়েছে। ট্রান্সশিপমেন্ট বন্দরে যা দেখছি; তাতে মনে হচ্ছে  আরো বেশ ক’মাস আমদানির এই ধারা অব্যাহত থাকবে। যদিও সেটি নির্ভর করছে চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ আসার পরিমান স্বাভাবিক থাকার ওপর।
জাহাজের মেইন লাইন অপারেটররা বলছেন, ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ১ লাখ ২১ হাজার একক কন্টেইনার আমদানি পণ্য এসেছে। ফেব্রুয়ারি মাসে এসেছে ১ লাখ ১৬ হাজার একক; মার্চ মাসে ১ লাখ ১৭ হাজার একক, এপ্রিল মাসে ১ লাখ ১৮ হাজার একক আর মে মাসে ১ লাখ ২২ হাজার একক কন্টেইনার পণ্য এসেছে। ফলে ২০২১ সালের মধ্যে সর্বোচ্চ আমদানি হয়েছে।
২০২১ সালের জানুয়ারিতে রপ্তানি পণ্যভর্তি কন্টেইনার গিয়েছে ৬১ হাজার একক, ফেব্রুয়ারিতে গেছে ৫৭ হাজার একক, মার্চে ৬০ হাজার একক, এপ্রিলে গেছে ৫৫ হাজার ৮শ একক এবং সর্বশেষ মে মাসে গেছে ৫৬ কন্টেইনার একক কন্টেইনার। অর্থ্যাৎ সর্বশেষ মে মাসে এপ্রিলের তুলনায় কন্টেইনার আসা বেড়েছে।
মুনতাসির রুবাইয়াত বলছেন, বাংলাদেশে রপ্তানির ধারা হচ্ছে, জুন থেকে আগস্টে গিয়ে সর্বোচ্চ অবস্থানে পৌঁছা। এবার সেদিকে যাচ্ছে রপ্তানির গতি। মে মাসে রপ্তানি বেড়েছে, জুনে আরো বাড়বে এভাবে আগস্টে সর্বোচ্চ হবে। এর প্রমান গার্মেন্ট মালিকরাও বলছেন, রপ্তানির বুকিং আবারো দিতে শুরু করেছেন বিদেশি ক্রেতারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *