চট্টগ্রাম বন্দর জলসীমায় এলএনজি নিয়ে এসেছে বিশ্বের বড় ট্যাংকার ‘আল কারানা’

0
1435

বিশেষ প্রতিনিধি
চট্টগ্রাম বন্দরের জলসীমায় এসেছে বিশাল দৈত্যাকার এক জাহাজ ‌‌’আল কারানা’। মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারের রাস বন্দর থেকে এলএনজি (লিকুইফাইড ন্যাচারাল গ্যাস) নিয়ে জাহাজটি গত ২১ নভেম্বর বন্দর জলসীমার কুতুবদিয়ায় গভীর সাগরে পৌঁছেছে। সেখান থেকে জাহাজটি মহেশখালীর ভাসমান এলএনজি স্টেশনে গিয়ে এলএনজি সরবরাহ করবে। সেই এলএনজি মহেশখালী থেকে মাটির নীচে থাকা পাইপলাইনের মাধ্যমে প্রথমে চট্টগ্রাম এরপর ঢাকায় যাবে।

মুলত দেশে এলএনজি ব্যবহার শুরুর পর থেকেই বড় আকারের ট্যাংকার জাহাজ আসছে চট্টগ্রাম বন্দর জলসীমায়। এর আগে এতবড় ট্যাংকার জাহাজ বহির্নোঙরে আসেনি।  যদিও এই জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে ভিড়ার সুযোগ নেই; কারণ চট্টগ্রাম বন্দরে কোন মাদার ভ্যাসেল ভিড়তে পারে না। বন্দরে সর্বোচ্চ ১৯০ মিটার দীর্ঘ এবং সাড়ে ৯ মিটার গভীরতার জাহাজ জেটিতে ভিড়ার সুযোগ আছে।

শিপিং লাইনগুলো বলছে, কুতুবদিয়ায় গভীর সাগরে আসা ‘আল কারানা’ জাহাজটি মুলত ট্যাংকার; যেটির দৈর্ঘ্য ৩১৫ মিটার এবং জাহাজটির গভীরতা ১১ দশমিক ৬ মিটার। ২০০৯ সালে তৈরী জাহাজটি প্রায় ১ লাখ ৩৭ হাজার টন পণ্য পরিবহনের ক্ষমতা রাখে। বর্তমানে জাহাজটি প্রায় ৬২ হাজার টন এলএনজি নিয়ে কুতুবদিয়ায় নোঙর ফেলেছে। এর আগে ২০১৮ সালে বাংলাদেশের জলসীমায় সর্বোচ্চ ২৭৭ মিটার দীর্ঘ ট্যাংকার জাহাজ নোঙরের রেকর্ড ছিল। জাহাজটির নাম ‘এক্সিলেন্স’ সেই জাহাজ এখনো মহেশখালীতে ভাসমান এলএনজি টার্মিনালে অস্থায়ীভাবে নোঙর করা আছে। এই জাহাজটি মুলত আমদানিকৃত এলএনজিবাহী জাহাজ থেকে পাইপলাইনের মাঝে যোগসূত্র হিসেবে কাজ করছে। কিন্তু বন্দরের ইতিহাসে ৩১৫ মিটার দীর্ঘ জাহাজ নোঙরের ঘটনা এই প্রথম।

জানতে চাইলে ‘এক্সিলেন্স’ জাহাজের শিপিং এজেন্ট সী কম শিপিংয়ের এক কর্মকর্তা শিপিং এক্সপ্রেসকে বলছেন, আগে এতবড়  ‌ট্যাংকার বন্দর জলসীমায় আসেনি। এখন দেশে এলএনজি’র ব্যবহার প্রচুর বেড়েছে তাই প্রচুর এলএনজি নিয়ে জাহাজ আসছে। বড় জাহাজে এলএনজি আসার মুল কারণ হচ্ছে পরিবহন খরচ কমানো। তবে বড় ট্যাংকারে এখন পর্যন্ত সরকারীভাবেই এলএনজি আসছে।

শুধু ‘আল কারানা’ জাহাজই নয়; এখন চট্টগ্রাম বন্দর জলসীমায় নোঙর করেছে ‘আল সেহানিয়া’ জাহাজ। জাহাজটির দীর্ঘ ৩১৫ মিটার এবং গভীরতা ১১ দশমিক ৫মিটার।  আর জাহাজটি ৬১ হাজার ৭শ টন এলএনজি নিয়ে এসেছে।

জানা গেছে, বিশ্বে এই মুহুর্তে সবচে বড় ট্যাংকার জাহাজ হচ্ছে ‘মোজাহ’ যেটি ৩৪৫ মিটার দীর্ঘ এবং ১২ মিটার গভীরতার। জাহাজটিতে ২ লাখ ৬৬ হাজার কিউবিক মিটার এলএনজি পরিবহন করা যায়। ২০০৮ সালে তৈরী জাহাজটি কাতার থেকে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে এলএনজি পরিবহন করছে। সেই তুলনায় এই দুটি ট্যাংকার জাহাজ একেবারে কাছাকাছি আকারের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here