চট্টগ্রাম বন্দরে আটক হলো জাহাজ ‘‌মেরিন বিয়া’

0
1479

বিশেষ প্রতিনিধি
এবার চট্টগ্রাম বন্দরে এসে আটক হয়েছে বিদেশি কন্টেইনার জাহাজ ‘‌মেরিন বিয়া’; মালয়েশিয়ার পোর্ট কেলাঙ বন্দর থেকে পণ্য নিয়ে জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে পৌঁছে ২৭ অক্টোবর; রপ্তানি পণ্য বোঝাইয়ের মাঝপথেই গত ২৯ অক্টোবর আটক করা হয়েছে জাহাজটিকে। এরপর পণ্যসহ জাহাজটিকে জেটি থেকে বহির্নোঙরে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত সেটি সেখানেই আটক থাকবে।
প্রায় পৌণে দুই কোটি টাকা ক্ষতিপুরণ দাবি করে ঢাকার এক আমদানিকারকের মামলার পর উচ্চ আদালত জাহাজটি আটক করার রায় দিলে নৌ বাণিজ্য অধিদপ্তর সেটি আটক করে। জাহাজটিতে বিপুল রপ্তানি পণ্যভর্তি কন্টেইনার রয়েছে; যেগুলো ইউরোপ-আমেরিকা হয়ে বিভিন্ন ক্রেতার কাছে পৌঁছানোর কথা। ৪ দিন ধরে বহির্নোঙরে আটকে থাকায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন এসব পণ্যের দেশিয় উৎপাদকরা।
আটকের বিষয়টি স্বীকার করে চট্টগ্রাম বন্দরের ডেপুটি কনজারভেটর ক্যাপ্টেন ফরিদুল আলম শিপিং এক্সপ্রেসকে বলেন, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা জাহাজটি আটক করেছি। ইতোমধ্যে জেটি থেকে জাহাজটি বহির্নোঙরে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। সেখানে কোস্ট গার্ড, নৌ বাহিনী এবং বন্দরের নিরাপত্তা বিভাগকে জাহাজটি আটকে রাখার বিষয়টি তদারকি করবে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সেটি সেখানেই আটক থাকবে।
অভিযোগ রয়েছে,  বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রনালয়ের জন্য কিছু ফায়ার ট্রাক আমদানি করে গত জুন মাসে ‘‌মেরিন বিয়া’ জাহাজে করে চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছিল। জাহাজে ট্রাকগুলো সঠিক এবং নিরাপদে না রাখার কারণে নতুন এই ট্রাকগুলোর বিভিন্ন অংশে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। জাহাজ থেকে নামানোর পর আমদানিকারক গাড়িগুলো সরবরাহ নিয়ে দেখে সেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত। সেই ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকের ক্ষতির পরিমান নির্নয় করে গত জুলাই মাসে উচ্চ আদালতে মামলা করে আমদানিকারক। উচচ আদালত সব বিবেচনায় নিয়ে জাহাজটি আটক করে ২ কোটি ৭২ লাখ টাকা ক্ষতিপুরন আদায়ের নির্দেশ দেয়।
জানা গেছে, ১২ বছর বয়সী ‘মেরিন বিয়া’ জাহাজটি পোর্ট কেলাঙ বন্দর থেকে রওনা দিয়ে ২৬ অক্টোবর চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছে। পরদিন ২৭ অক্টোবর জাহাজটি আমদানি পণ্য নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে ভিড়ে। পণ্য নামানোর একদিন পর জাহাজটি রপ্তানি পণ্য বোঝাই করে চট্টগ্রাম বন্দর ছেড়ে সিঙ্গাপুর বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার কথা ছিল। সিঙ্গাপুর বন্দর হয়ে বড় জাহাজে এসব রপ্তানি পণ্য জাহাজীকরণ হয়ে ইউরোপ-আমেরিকার নির্ধারিত গন্তব্যে রওনা দেয়ার শিডিউল ছিল কিন্তু তার আগেই জাহাজটি আটক করা হয়।
বিষয়টিি সম্পর্কে জাহাজটির দেশিয় শিপিং এজেন্ট সী কন বাংলাদেশের ব্যবস্থাপক সাইফুল আলমকে ফোন করা হলে তিনি সাড়া না দেয়ায় তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here