কৃঞ্চপাত্তনামে আটকে পড়া পণ্য আনতে বিশেষ অনুমতি ‘এসএসএল কচি’ জাহাজের

বিশেষ প্রতিনিধি
ভারতের কৃঞ্চপাত্তনাম বন্দরে আটকে পড়া ৩ হাজার একক আমদানি পণ্যভর্তি কন্টেইনার আনতে বিশেষ বিবেচনায় ‘এসএসএল কচি’ জাহাজকে চলাচলের অনুমতি দিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। এর আগে চট্টগ্রাম-কৃঞ্চপাত্তনাম রুটে চলাচলকারী ‘এসএসএল কচি’ জাহাজটির অনুমোদন মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় চলাচল বাতিল করে বন্দর কর্তৃপক্ষ। এই অবস্থায় কৃঞ্চপাত্তনাম বন্দরে পণ্য বোঝাইয়ের পর জাহাজটি রনা দিতে পারেনি। সেই পণ্য জাহাজ থেকে নামিয়ে ইয়ার্ডে রাখা হয়।
দীর্ঘদিন পড়ে থাকায় বাংলাদেশি আমদানিকারকের আর্থিক বিষয় মাথায় রেখে চট্টগ্রাম বন্দর এগিয়ে এসে আগের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে।
জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর পরিচালক (পরিবহন) এনামুল করিম বলেন, দেশিয় আমদানিকারকদের আর্থিক ক্ষতির বিষয় বিবেচনায় নিয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষ বিশেষ বিবেচনায় শুধুমাত্র আটকে পড়া ওই পণ্য আনতে জাহাজটি পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে। নিয়মিতভাবে এই রুটে জাহাজ চলাচলের অনুমতি নেই।
জানা গেছে,  চট্টগ্রাম থেকে ভারতের কৃঞ্চপাত্তনাম রুটে ‘এসএসএল কচি’  জাহাজ পণ্য পরিবহনের অনুমোদন ছিল ২০২১ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত। এরপর থেকে জাহাজটি অনুমোদন ছাড়াই চলাচল করছিল। সর্বশেষ জুলাই মাসে বন্দরে জাহাজজট তৈরি হলে অনুমোদনহীন জাহাজ চলাচলের বিষয়টি তদারকির সময় অনুমোদন ছাড়া ‘এসএসএল কচি’ চলাচলের বিষয়টি ধরা পড়ে। এরপর আমদানিকারকদের স্বার্থের কথা চিন্তা করে একবার বিশেষ বিবেচনায় জাহাজটি চলাচলের অনুমোদন দেয়া হয়েছিল। এরপর থেকে আর অনুমোদন নবায়ন করা হয়নি।
এই অবস্থার মধ্যেই ‘এসএসএল কচি’ জাহাজটিতে দুই হাজার এক আমদানি পণ্য বোঝাই করা হয় কৃঞ্চপাত্তনাম বন্দর থেকে। কিন্তু জাহাজটি যে চলাচলের অনুমতি নেই বিষয়টি গোপন রাখে জাহাজ পরিচালনাকারী কর্ণফুলী গ্রুপ। এরইমধ্যে বিষয়টি জেনে যায় কন্টেইনার বুকিং দেয়া বিদেশি শিপিং কম্পানি হ্যাপাগ-লয়েড। এই টানাপোড়েনের মধ্যেই জাহাজ থেকে পণ্য নামিয়ে ইয়ার্ডে রাখা হয়। আর এসএসএল কচি জাহাজটি অন্য রুটে পণ্য পরিবহন করতে থাকে।
এদিকে বিদেশি শিপিং কম্পানি হ্যাপাগ-লয়েড বিভিন্ন শিপিং প্রতিষ্ঠানে যোগাযােগ করে সীকন শিপিংকে রাজি করিয়ে ‘এক্সপ্রেস নিলওয়ালা’ নামের আরেকটি জাহাজে আটকে পড়া পণ্য নিয়ে আসা চুড়ান্ত করে। কিন্তু সী কনের জাহাজটিকে আটকে পড়া পণ্য আনার অনুমোদন দেয় নি বন্দর কর্তৃপক্ষ। পরে অবশ্য আগের  ‘এসএসএল কচি’ জাহাজেই সেই পণ্য আনার অনুমোদন দেয় বন্দর কর্তৃপক্ষ। এখন সেই জাহাজে পণ্য আনার প্রক্রিয়া চলছে।
কখন জাহাজটি পণ্য নিয়ে আসবে জানার জন্য কর্ণফুলী গ্রুপের এইচ আর লাইনের নির্বাহী পরিচালক আনিস উদ দৌলাকে ফোন করলে তিনি সাড়া না দেয়ায় তাঁর বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।
তবে ‘এসএসএল কচি’ জাহাজটি ট্র্যাক করে দেখা গেছে সেটি এখন পণ্য নিয়ে হালদিয়া থেকে বিশাখাপাত্তনাম বন্দরের বহির্নোঙরে অবস্থান করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *