এবার সমুদ্রগামি জাহাজ পরিচালনায় সাইফ পাওয়ারটেক

আটটি জাহাজ চলবে ফুজাইরা-চট্টগ্রাম-মোংলা রুটে

Dhaka Post Desk

বিশেষ প্রতিনিধি

30 June, 2022

Views

প্রথমবার সমুদ্রগামি জাহাজ পরিচালনায় আসছে বাংলাদেশের একমাত্র বন্দর টার্মিনাল অপারেটর সাইফ পাওয়ারটেক। এতদিন প্রতিষ্ঠানটি মোঙলা বন্দরে পণ্য উঠানামা এবং পাঁনগাওয়ে পণ্য উঠানামার কাজে নিয়োজিত থাকলেও জাহাজ পরিচালনায় উদ্যোগ এই প্রথম। রেলপথে কন্টেইনার পরিবহনে চট্টগ্রামের হালিশহরে দেশের প্রথম মাল্টিমোডাল কনটেইনার টার্মিনাল নির্মাণ করছে সাইফ পাওয়ারটেক।
সাইফ পাওয়ারটেক জাহাজ পরিচালনার জন্য কোম্পানির শতভাগ মালিকানাধীন সহযোগী প্রতিষ্ঠান সাইফ ইউনাইটেড শিপিং অ্যান্ড ট্রেডিংয়ের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি পোর্ট গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান শাফিন ফিডার কোম্পানির সাথে চুক্তি করেছে।
চুক্তি অনুযায়ী, শাফিন ফিডারের বহরে থাকা বড় আকারের সমুদ্রগামী আটটি জাহাজ ১৫ বছরের জন্য ইজারায় নিয়ে পরিচালনা করবে সাইফ ইউনাইটেড শিপিং কোম্পানি। প্রতিটি জাহাজের পণ্য পরিবহনক্ষমতা ৫৫ হাজার মেট্রিক টন। জাহাজগুলো চলাচলের প্রধান পথ হবে দুবাইয়ের ফুজাইরা বন্দর থেকে চট্টগ্রাম বন্দর ও মোংলা বন্দর এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যান্য বন্দরে পণ্য পরিবহন করবে।

জানতে চাইলে সাইফ পাওয়ারটেকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার রুহুল আমিন বলছেন, এই চুক্তির মাধ্যমে আমাদের সেবার পরিধি আরো একধাপ এগিয়ে গেল। খোলা পণ্য জাহাজে পণ্য পরিবহনে আর্ন্তজাতিক মানের সেবা দিতে পারব। বাংলাদেশ তো বটেই ফুজাইরা বন্দর থেকে বিশ্বের অন্য দেশের বন্দরের আমরা সেবা দিতে পারবো।
তিনি বলেন, আমাদের সেবা গ্রহীতারা পণ্য পরিবহনে প্রকৃত বেনিফিট পাবেন। একইসাথে দ্রুত-সাশ্রয়ে পণ্য পরিবহন সেবা নিশ্চিত করা হবে।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি পুজিবাজারে তালিকাভূক্ত কম্পানি সাইফ পাওয়ারটেক ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই) চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে অবহিত করেছে। ডিএসই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী প্রতিটি জাহাজ থেকে বছরে ১ কোটি ৮০ লাখ ডলার বা ১৫৪ কোটি টাকা ভাড়া বাবদ আয় হবে। সব খরচ বাদ দেওয়ার পর মুনাফা হবে ১৫ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। এ হিসেবে আটটি জাহাজ থেকে মুনাফা হতে পারে প্রায় ১২৪ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ ২০২০-২১ অর্থবছরে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ১ দশমিক ৩২ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করেছে, যা আগের বছরের তুলনায় ৮৩ শতাংশ বেশি। ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশ থেকে ০.৪৯ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে ইতিমধ্যেই ০.৪১ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে।
দুবাইয়ের ফুজাইরা বন্দর থেকে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি আমদানি হয় নির্মাণসামগ্রী পাথর ও সিমেন্টশিল্পের কাঁচামাল। ফুজাইরা বন্দর থেকে পাথরের কোয়ারি খুব কাছে। তাই ওই বন্দর থেকে পণ্য আনলে খরচ কম পড়ে। বছরে অর্ধকোটি টনের বেশি পাথর বড় আকারের জাহাজে করে বন্দরটি থেকে চট্টগ্রামে আনা হয়। সে হিসেবে এই রুট লাভজনক হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালে আবুধাবি পোর্ট (এডি) গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে যাত্রা শুরু করে শাফিন ফিডার। কনটেইনার জাহাজ পরিচালনা দিয়ে শুরু করে তারা। সাফিন ফিডার হলো আরব আমিরাতভিত্তিক কনটেইনার ফিডার সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান। এডি পোর্টস গ্রুপ কর্তৃক ২০২০ সালে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিটি মূলত আরব উপসাগর ও ভারতীয় উপমহাদেশের কনটেইনার পরিবহন নেটওয়ার্কে সেবা দিয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.