একদিনে কন্টেইনার ডেলিভারি ২৯শ একক

বিশেষ প্রতিনিধি
কন্টেইনার জট কমাতে বন্দরের ভিতর ইয়ার্ডের বদলে আমদানি পণ্যভর্তি সব ধরনের এফসিএল কন্টেইনার বেসরকারী ১৯টি কন্টেইনার ডিপোতে নিয়ে ছাড়ের অনুমতি দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। কন্টেইনার জট কমিয়ে অচলাবস্থা এড়াতে চট্টগ্রাম বন্দর এই উদ্যোগে সায় দিয়েছে রাজস্ব বোর্ড। গত ২৫ জুলাই থেকেই সেটি কার্যকর হয়েছে। সেই সিদ্ধান্তের একদিন পরই আজ ২৬ জুলাই একদিনে কন্টেইনার ডেলিভারি হয়েছে ২৯শ একক।
যদিও বন্দর ব্যবহারকারীরা বলছেন, ঈদের পর গত রবিবার প্রথমদিন সরকারী অফিস খোলা ছিল। এই কারণে কন্টেইনার ডেলিভারির পরিমান বেড়েছে। রাজস্ব বোর্ডের সিদ্ধান্তের প্রভাব খুব বেশি নেই।
জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর পরিচালক (পরিবহন) এনামুল করিম বলছেন, রাজস্ব বোর্ডের সিদ্ধান্তের প্রভাব জানা যবে আগামীকাল ২৭ জুলাই। ২৬ জুলাইয়ের তথ্য কিন্তু সকাল আটটা পর্যন্ত পাওয়া। আমরা আশাকরি এক সপ্তাহের মধ্যে এই সিদ্ধান্তের সুফর আমরা পাবো।
তিনি বলেন, গার্মেন্ট যদি ৫ আগস্ট পর্যন্ত বন্ধই থাকে তাহলে ডিপোতে আটকে থাকা রপ্তানির পরিমান অনেক কেম সহনীয় পর্যায়ে চলে আসবে। উদ্বেগ কেটে যাবে।
বন্দরের হিসাব বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ঈদুল আজহার আগের দিন গত ২০ জুলাই থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত ৫ দিনে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে গড়ে মাত্র ৩৪২ একক কন্টেইনার ডেলিভারি হয়েছে; যা রেকর্ড। মুলত ঈদের ছুটি এবং শাটডাউন একই সময়ে হওয়ায় পণ্য ডেলিভারিতে এই অচলাবস্থা নেমেছে। এরপর ২৫ জুলাই কন্টেইনার ডেলিভারি বেড়ে ১৯শ একক; সর্বশেষ ২৬ জুলাই ডেলিভারি বেড়ে ২৯শ এককে উন্নীত হয়।
শিপিংলাইনের এক কর্মকর্তা বলছেন, বেসরকারী ডিপো থেকে পণ্যছাড়ের সিদ্ধান্তে অনেকেই অখুশি। কারণ ডিপো থেকে পণ্য ছাড়ে সময় বেশি, বাড়তি ব্যয় হয়। তাই বাড়তি খরচ-সময় এড়াতে দ্রুত পণ্যছাড় নিবেন অনেকেই। তবে গার্মেন্ট মালিকরা পণ্যছাড় না নিলে কিন্তু কন্টেইনার জট শেষপর্যন্ত কমবে না।
বন্দরের হিসাবে, ২৬ জুলাই ডেলিভারি নেয়া ২৯শ একক কন্টেইনারের মধ্যে ১৯শ একক ছিল অন চেসিস; বাকি ১ হাজার একক ছিল বেসরকারী কন্টেইনার ডিপোতে। বাড়তি কন্টেইনার ডেলিভারি হওয়ায় আজ পর্যন্ত বন্দরে মোট কন্টেইনার জমেছিল ৪২ হাজার একক।
চট্টগ্রাম বন্দরের সংরক্ষিত এলাকায় মোট ৪৯ হাজার একক কন্টেইনার রাখা যায়। এরমধ্যে ১৫ শতাংশ স্থান খালি রাখতে হয় কন্টেইনার পরিচালন ঠিক রাখতে। ফলে এখন বন্দর তার সক্ষমতার পূর্ণ ব্যবহার করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *